সিলেটে দুই বিএনপি নেতার দ্বন্দ্ব ব্যবসার টাকা নিয়ে

শেয়ার করুন

নিউজ ডেস্ক ;
সিলেটে ব্যবসার টাকা নিয়ে দুই বিএনপি নেতার দ্বন্দ্ব
সিলেট জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি আবুল কাহের চৌধুরী শামীম ও কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা বিএনপি নেতা হাজি মোহাম্মদ কামাল উদ্দিনের মধ্যে পাওনা টাকা নিয়ে দ্বন্দ্ব চলছে। এমনকি এ ব্যাপারে হাজি কামাল উদ্দিন থানায় জিডি পর্যন্ত করেছে বলে নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে।

সিলেট জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি আবুল কাহের চৌধুরী শামীমের কাছে ১০ লাখ ৬৭ হাজারের বেশি টাকা পাওনা বলে দাবি করেছেন কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা বিএনপি নেতা ও ব্যবসায়ী হাজি মোহাম্মদ কামাল উদ্দিন। দীর্ঘদিন থেকে পাওনা টাকা আদায় করতে না পেরে গত ১৬ আগস্ট এ ব্যাপারে তিনি কোম্পানীগঞ্জ থানায় একটি লিখিত অভিযোগও ( জিডি নং ৭২১ ) দায়ের করেন। এর আগে ব্যক্তিগতভাবে চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়ে দলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাদের সহযোগীতায় বিষয়টির সন্তোষজনক নিষ্পত্তি করতে চেয়েছিলেন তিনি। কিন্তু তাও সম্ভব হয়নি। বরং আরও নানা অপ্রীতিকর ঘটনার মুখোমুখী হতে হয়েছে তাকে। বিষয়টি সমাধানের জন্য এখনো তিনি চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বলে জানিয়েছে নির্ভরযোগ্য সূত্র।

তবে জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি আবুল কাহের চৌধুরী শামীম বিষয়টি অস্বীকার করেছেন।

জানতে চাইলে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা বিএনপি নেতা ও ব্যবসায়ী হাজি মোহাম্মদ কামাল উদ্দিন বলেন, শামীম ভাই’র কাছে ব্যবসার টাকা পাওনা ছিল আমার। ১০ লাখ ৬৭ হাজারের বেশি টাকা আদায় করতে গিয়ে আমি নানা হুমকি ধমকির স্বীকার হয়েছি। এমনকি এ ব্যাপারে বিএনপি নেতা কাইয়ুম চৌধুরী, এমরান আহমদ চৌধুরীসহ আরও অনেকের কাছে ধর্না দিযেছি। তারা কেউই এ ব্যাপারে কথা বলতে আগ্রহ দেখাননি। আর তাই বাধ্য হয়ে গত ১৬ আগস্ট সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ থানায় একটি সাধারণ ডায়রিও করেছি।

তিনি আরও বলেন, এ ব্যাপারে সম্প্রতি আবুল কাহের শামীমের সাথে তার একটি চুক্তি হয়েছে। আমি কিছুটা ছাড় দিয়েছি। উনি আগামী ৫ নভেম্বর ৭ লাখ টাকা দিবেন আমাকে।

এ ব্যাপারে ৩০০ টাকার স্ট্যাম্পে একটি লিখিত চুক্তিও হয়েছে বলে স্বীকার করেছেন হাজি মোহাম্মদ কামাল উদ্দিন।

তবে বুধবার রাতে থানার বাইরে থাকায় জিডির বিষয়টি নিশ্চিত করেতে পারেন নি কোম্পানীগঞ্জ থানার ওসি ( ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ) কেএম নজরুল। ডিউটি অফিসার আবু সায়েম জিডির বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

Related posts

Leave a Comment