কোম্পানিগঞ্জে“ইসলাহুল মুসলিমীন কোভিড-১৯” টিমের আত্মপ্রকাশ

শেয়ার করুন

সময়ের খবর ;
গতকাল ২৯ আগস্ট ২০২১ ঈসায়ী রোজ রবিবার দুপুর ১২ ঘটিকায় কোম্পানিগঞ্জ উপজেলা পরিষদে ইসলামিক ফাউণ্ডেশন কোম্পানিগঞ্জ উপজেলার দায়িত্বশীলদের সাথে আলিমদের একটি টিম পরামর্শ সভা করে তরুণ আলিমদের নিয়ে ১৩ সদস্য বিশিষ্ট একটি টিম নির্দিষ্ট করে “ইসলাহুল মুসলিমীন কোভিড-১৯” নামকরণ করে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে সবার স্বাক্ষর নিয়ে অফিস সহকারী মাছুম বিল্লাহের মাধ্যমে নির্বাহী অফিসার বরাবর প্রেরণ করা হয়।

আমরা আশাবাদ ব্যাক্ত করছি যে,অতি শীগ্রই নির্বাহী অফিসারের অনুমোদন প্রাপ্ত হবো এবং কালক্ষেপণ না করে মাঠ পর্যায়ে আমাদের কার্যক্রম চালু করে দিবো।

মৃতব্যক্তিকে গোসল দেওয়ার শরয়ী বিধান হলোঃ
হাদিসে এসেছে,মৃত ব্যক্তিকে গোসল দেওয়া ফরজে কেফায়া। কিছু লোক যদি তাকে গোসল করিয়ে দেয়,তাহলে সবার পক্ষ থেকে সে ফরজ আদায় হয়ে যাবে। যদি কেউ তাকে গোসল করিয়ে না দেয়,তাহলে সবাই গুনাহগার হবে এবং গোসল না দিয়ে দাফন করা হলো মাকরূহ’।

তাই এরকম অত্যাবশকীয় কাজকে যেনো সংক্রমণের ভয়ে আর অবজ্ঞা-তাচ্ছিল্যে না করে নিজের অজান্তে গোনাহে লিপ্ত না হই।

অন্য হাদিসে আল্লাহর রাসুল সাঃ বলেন “যারা মৃত ব্যক্তির জানাযায় শরিক হবে তারা এক কিরাত সাওয়াব পাবে আর যারা জানাযার সাথে দাফনে শরিক হবে তারা দু’কিরাত সাওয়াব পাবে।

আর এক কিরাতের পরিমাণ উল্লেখ করে মুহাদ্দিসিনে কেরাম বলেনঃ এক কিরাত হলো উহুদ পাহাড়ের সমান।
সুতরাং এরকম পুরস্কার কি কোন মু’মিন মিস করতে পারে অবশ্যই না!

উপরন্তু হাদিসের আলোকে একদল তরুণ আলিমে দ্বীন স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে মৃতব্যক্তিদের গোসল,দাফন-কাফন ইত্যাদি কাজ সম্পন্ন করতে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন তাই কারো আত্মীয়স্বজন বা আশপাশের কেউ করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করলে নির্ধারিত দায়িত্বশীলদের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন।

দায়িত্বশীলবৃন্দ হলেনঃহাঃ মাওঃ মাহমুদুল হাসান।মোবাইলঃ 01711-429461,মুফতি রুহুল আমিন সিরাজী, মোবাইলঃ 01768-881562
এবং সার্বিকভাবে এই স্বেচ্ছাসেবী টিমকে সহযোগিতা আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

Related posts

Leave a Comment